অবশেষে মৃত্যূর কাছে হেরে গেলেন আবাসনের রোকসানা

< 1 min read

নিজস্ব প্রতিনিধি, দর্শনা চুয়াডাঙ্গা থেকে ঃঃ

চুয়াডা্ঙ্গা জেলার সীমান্তবর্তী শিল্পশহর দর্শনার নিকটবর্তী আকন্দবাড়ীয়া আবাসনের ভিতর এক সন্তানের জননী বিষ পানে আত্মহত্যা করেছে বলে জানা গেছে। তার নাম রোকসানা বেগম। মরার সময় রোকসানা ৮মাসের অন্তসত্ত্বা ছিলো। তার ৭/৮ বছরের একটি ছেলে সন্তান আছে।

স্বামী ও তার শশুর বাড়ির লোকজনের কারণেই এ আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে বলে এলাকাবাসী মন্তব্য করেছেন। তবে সুরতহাল রিপোর্টের পর সবকিছু পরিস্কার হয়ে যাবে বলে জানান স্থানীয় পুলিশ।

মৃত রোকসানা(৩০) দীর্ঘ দিন বাপের বাড়ি থাকার পর এক সপ্তাহ আগে স্বামীর বাড়ি আকন্দবাড়িয়া আবাসনে স্বামীর কাছে আসেন। ছয় দিন মোটামুটি ভালোভাবে চলার পর রোকসানার সাথে পায়ে পা বাধিয়ে ঝগড়া শুরু করে স্বামী ছাত্তার। এক পর্যায়ে ছাত্তার রোকসানার বাবা মায়ের নামে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে, একই সাথে বেধড়ক মারধর করে মাটিতে ফেলে রাখে। এক পর্যায়ে রোকসানা তার স্বামীর ঘরে রক্ষিত কীটনাশক বিষ পান করে। কিছুক্ষণ পর রোকসানা স্বশব্দে বমি করা শুরু করলে তাকে নেয়া হয় চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে। এখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ মঙ্গলবার বেলা দেড়টার সময় রোকসানা মৃত্যুবরণ করে।

উল্লেখ্য যে, গত রবিবার রোকসানা বিষপান করে। বিষপানে মৃত রোকসানা আকন্দবাড়িয়া আবাসনের সামনের চা দোকান ব্যবসায়ী ও গাংপাড়া নিবাসী ইকরামূলের শ্যালিকা। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বেগমপুর ক্যাম্প ইনচার্জ মযনা তদন্তের জন্য চেষ্টা করছিলেন। এদিকে দুপুর থেকেই এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। বিশেষ করে সদ্য মা হারানো একমাত্র সন্তানের আহাজারিতে এলাকার বাতাস ভারি হয়ে উঠে।

এ বিষয়ে রোকসানার বর্তমান অভিভাবক ইকরামূল দৈনিক আমাদের সংবাদকে বলেন এটা উপড় থেকে বিষপান মনে হলেও মূলতঃ এটি একটি ডাবল হত্যা মামালা। কারণ রেকসনা ৭/৮ মাসের অন্তসত্ত্বা ছিলো। তাই পচার ছেলে ছাত্তার সহ জড়িতদের সকলের ব্যাপারে মামলা দিয়ে আইনগতভাবে কঠিন শাস্তির ব্যবস্থা যাতে হয় সে পদক্ষেপ নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Share via
Copy link
Powered by Social Snap