আপাতত ভারত থেকে পেঁয়াজ আসবে না

< 1 min read

আমাদের সংবাদ ডেস্কঃ

ভারত সরকার অভ্যন্তরীণ বাজারে দাম নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়ে পেঁয়াজ রপ্তানি পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে । দেশটির বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বৈদেশিক বাণিজ্য শাখা পেঁয়াজ রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে আজ রোববার ।

জানা যায়, চলতি বছর বন্যার ফলে ভারতের মহারাষ্ট্র ও কর্ণাটকে পেঁয়াজের উৎপাদন খুবই কম হওয়ায় নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যের দাম লাগামহীনভাবে বাড়তেই থাকে। দিল্লির খুচরা বাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬০ রুপিতে, যা এক মাস আগেও ২০ থেকে ৩০ রুপি ছিল। ভারতের কোনো কোনো এলাকায় পেঁয়াজের দাম ৮০ টাকাতেও গিয়ে ঠেকেছে।

সারা দেশেই পেঁয়াজের পাশাপাশি অন্যান্য নিত্যপণ্যের দামও ঊর্ধ্বমুখী। এমন পরিস্থিতিতে গত ১৩ সেপ্টেম্বর দেশটির বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বৈদেশিক বাণিজ্য শাখা প্রতি মেট্রিক টন পেঁয়াজের ন্যূনতম রপ্তানি মূল্য ৮৫০ ডলার নির্ধারণ করে দেয়।

২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৪৯ কোটি ৬৮ লাখ ডলারের পেঁয়াজ রপ্তানি করেছে ভারত, যার একটি বড় অংশ এসেছে বাংলাদেশে। ভারতের পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের সিদ্ধান্তের প্রভাব বাংলাদেশের বাজারে পড়ে ঠিক পরদিনই। ওই খবরে বাংলাদেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম এক লাফে বেড়ে যায় ২০ থেকে ২৫ টাকা।!

ঢাকার বাজারে রোববার প্রতি কেজি ভারতীয় পেঁয়াজ ৭০ টাকা এবং দেশি পেঁয়াজ ৭৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

বাংলাদেশে বছরে পেঁয়াজের উৎপাদন হয় ১৭ থেকে ১৯ লাখ মেট্রিক টনের মত। দেশীয় উৎপাদনে চাহিদা পূরণ না হওয়ায় আমদানি করতে হয় ৭ থেকে ১১ লাখ মেট্রিক টন। যার  বেশিরভাগটাই আমদানি হয় ভারত থেকে।

দেশের চাহিদা পূরণে ভারতের পাশাপাশি মিয়ানমার, মিশর ও তুরস্ক থেকেও পেঁয়াজ আমদানির এলসি খোলার কথা বাণিজ্য সচিব মো. জাফর উদ্দীন এক সপ্তাহ আগে জানিয়ে বলেছিলেন, ভোক্তাদের আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই, দাম দ্রুত কমে আসবে।  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Share via
Copy link
Powered by Social Snap