Fiver bussniess

আশুলিয়ার শ্রমিকলীগের আঞ্চলিক কমিটি সভাপতির কর্মকাণ্ডের নেতাকর্মীরা হ্মুব্ধ

সুচিত্রা রায়,নিজস্ব প্রতিবেদক ঃ

  • Save

গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শ্রমিকলীগের আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির সহ সভাপতি সারোয়ার হোসেন তাঁর দায়িত্ব এবং কমিটি থেকে অব্যহতি দিয়ে পিডিপিতে যোগদান করেন। পরে বাঘ মার্কা প্রতিকে সে নিজেই প্রার্থী হয়ে সংসদ নির্বাচন করেন। দল ত্যাগের পরও সারোয়ার এখনও স্বপদেই আছেন বহাল তবিয়তে।

এমন দল ত্যাগী নেতার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা এবং পদত্যাগপত্রে সাক্ষর না দিলেও দলের পোড় খাওয়া নেতা কর্মীদের বহিষ্কারসহ বিভিন্ন ভাবে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে জাতীয় শ্রমিকলীগের আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি আকবর হোসেন মৃধার বিরুদ্ধে। নানা অজুহাতে কমিটি থেকে এপর্যন্ত তিনজনকে বহিষ্কারের খবর পাওয়া গেছে। সভাপতির বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে সাধারণ নেতা কর্মীর মাঝে অসন্তোষ ও ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে ।

১ জানুয়ারি ২০১৭ সালে কেন্দ্রের অনুমতি পায় আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটি। তারপর থেকে এপর্যন্ত বিভিন্ন বিতর্কের সৃষ্টি করে এই কমিটির সভাপতি। সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে বেফাস বক্তব্য দিয়ে তুমূল সমালচনার ঝড় তোলেন এই নেতা। সেই বক্তব্যর ভিডিও ভাইরাল হয় ইউটিউব ফেসবুকে। তবুও থেমে নেই তাঁর বিতর্কিত কর্মকাণ্ড।

সারোয়ারের কাছে অব্যহতি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমি আনুষ্ঠানিক ভাবেই জাতীয় শ্রমিকলীগ আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটি থেকে অব্যহতি দিয়ে পিডিপির মনোনিত প্রার্থী হয়ে বাঘ মার্কায় নির্বাচন করেছি।সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক আমার অব্যহতি পত্র গ্রহণ না করে এখনও কমিটিতে রেখেছেন। তবে আগের মত সংগঠনে সময় দিতে পারিনা, বড় কোনো অনুষ্ঠান হলে উপস্থিত থাকার চেষ্টা করি।

ধামসোনা ইউনিয়ন শ্রমিকলীগ সভাপতি মো. মুক্তার মুন্সি জানান, সে ছাত্র জীবনে ছাত্রলীগ করতেন, বিগত বিএনপি জামাত জোট সরকারের আমলে রাজপথে সক্রিয় ভূমিকা রাখায় পরবর্তীতে ইউনিয়ন শ্রমিকলীগের সভাপতির দায়িত্ব দেয়া হয়। আকবর হোসেন মৃধার পছন্দের লোক না হওয়ায় ছোট্ট একটি বিষয়ে তাকে বহিষ্কার করেন। এবং সপদে বহাল ও বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের জন্য তাঁর কাছে আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি টাকা চেয়েছেন বলেও জানান এই শ্রমিক নেতা।

এদিকে জাতীয় শ্রমিকলীগের আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির সদ্য বহিষ্কৃত যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক মামুন রানা বলেন, বিগত বিএনপি-জামাত জোট সরকারের আমলে আন্দলন সংগ্রাম করতে গিয়ে পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়েছি আর আজ তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আঞ্চলিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক লায়ন ইমাম হোসেনের একক সাক্ষরে আমাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এবং আমাকে ফের সপদে বহাল রাখতে সহসভাপতি জাহাঙ্গীর আমার কাছে টাকা দাবি করে।

এ ব্যাপারে জাতীয় শ্রমিকলীগের আশুলিয়া আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি আকবর হোসেন মৃধা বলেন, আমার কমিটির সহ-সভাপতি সারোয়ার গত সংসদ নির্বাচনে শ্রমিকলীগ থেকে অব্যহতি দিয়ে অন্য একটি দলে যোগদান করে বাঘ মার্কা প্রতিকে ঢাকা-১৯ আসনে নির্বাচন করেছিলো। কিন্তু সে আমাদের কথামত নির্বাচন থেকে সড়ে এসে নৌকার পক্ষে ভোট করেছে। তাই তাকে কমিটিতে রেখে দিয়েছি । আর মুক্তার মুন্সি এবং মামুন রানা কে সাংগঠনিক নিয়মেই বহিষ্কার করা হয়েছে । তাদের কাছে কেউ টাকা দাবি করে থাকলে এবং তাঁরা যদি উপযুক্ত প্রমাণ দিতে পারে তাহলে যারা টাকা চেয়েছে তাদেও বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Translate »
Share via
Copy link
Powered by Social Snap