স্বামীকে রিহ্যাবে দিলো স্ত্রী

< 1 min read
  • Save
কথিত মাদক সেবী মোহর

সুচিত্রা রায়, আশুলিয়া (ঢাকা) থেকেঃ

মাদকসেবী না হয়ে জোর র্পুবক মাদক নিরাময় কেন্দ্রে রাখায় আশুলিয়া থানায় সাধারণ ডাইরী করেও শেষ রক্ষা হলোনা মহাসিন আলী মহরের । ফের গোপনে মাইক্রোবাসে করে তুলে নিয়ে মাদক নিরাময় কেন্দ্রে রেখে এসেছে তাঁর ১ম স্ত্রী । ডাইরী সূত্রে জানা যায়, মহাসিন কোনো মাদকদ্রব্য সেবন করেনা এবং সে একজন কিডনী রোগী। ২য় বিয়ে করাই পারিবারিক বিরোধকে কেন্দ্র করে প্রথম স্ত্রী রিনা, লেহাজ উদ্দিনসহ তার চাচারা তাকে উত্তরার রাজলক্ষী ৪নং বাগীর রেইনবো সেন্টার নামক রিহ্যাব সেন্টারে রেখে আসে।

সেখান থেকে বাড়িতে আসার পর ২য় স্ত্রী তানিয়ার সাথে সংসার করায় ১ম স্ত্রী রিনা বিভিন্ন হুমকি ধামকিসহ জমি লিখে নিতে চায় ।এই মর্মে থানায় একটি সাধারণ ডাইরীও করেন মহসিন। যার জিডি নং-২৩৫০।

 মহাসিন আলী মহর ঢাকা জেলা আশুলিয়া থানা নিশ্চিন্তপুর গ্রামের মৃত আঃ হামিদের ছেলে। মহরের ছোট স্ত্রী তানিয়ার সাথে কথা বলে জানা যায়, এর আগে উত্তরায় একটি মাদক নিরাময় কেন্দ্রে টাকার বিনিময় রেখে আসে মহরের আগের পক্ষের স্ত্রী। সেখান থেকে সে মহরকে উদ্ধার করে আনে, তারপর আবারও মাদক নিরাময় কেন্দ্রে দিয়ে দেবে এমন ভয়ে তার স্বামী থানায় সাধরণ ডাইরী করেন। তার কয়েকদিন পর পাঁচজন লোক মাইক্রোবাসে করে তার স্বামীকে তুলে নিয়ে যায় , অনেক খোঁজাখুজি করে না পেয়ে ডাইরীর কাগজ নিয়ে তদন্তের দায়ীত্বে থাকা এস আই  নাহিদ হাসানকে বিষয়টি জানাই এবং থানায় অভিযোগ দায়ের করি । তানিয়া আরো জানান, সে সাত মাসের অন্তঃসত্বা স্বামীকে না পেয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। এছাড়া ১ম স্ত্রীর প্রভাবে সে ন্যায় বিচার পাচ্ছেনা বলেও তিনি দৈনিক আমাদের সংবাদকে জানান ।

এ ব্যাপারে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক নাহিদ হাসান বলেন, আমরা তদন্ত করে দেখেছি মহরকে জোর করে রিহ্যাব সেন্টারে রাখা হয়নি । সে ইচ্ছাকৃতই গাড়িতে উঠে গিয়েছে। যাওয়ার আগে সে তাঁর ২য় স্ত্রীকে ডিভোর্স দিয়ে গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Share via
Copy link
Powered by Social Snap