কোটচাঁদপুর সরকারী কলেজে ভবন নির্মাণে নিম্মমানের সামগ্রী ব্যবহার করায় প্রান গেল ১ শ্রমিকের

কোটচাঁদপুর থেকে আব্দুল করিম:

  • Save

কোটচাঁদপুর সরকারি কে এম এইচ কলেজের নির্মাণ কাজে নিম্মমানের সামগ্রী ব্যবহার করায় ভবন ধসে এক শ্রমিকের মৃত্যু। এই মৃত্যু্র দায় সবাই এড়িয়ে যেতে চাই।

এই মৃত্যু ও নিন্মমানের কাজের বিষয় নিয়ে মুঠো ফোনে কলেজের অধ্যক্ষের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, এই ঠিকাদারির কাজের দায়িত্ব পেয়েছেন “মেসার্স ইনটু ট্রেডার্স“। তাঁর বক্তব্য আনুযায়ী, ভবন নির্মাণে যে ঢালায় দেওয়া হোক না কেন আমাদের কমিটির সকলকে ডাকার কথা ছিল ,কিন্তু কন্টাকটার ও ইঞ্জিনিয়ারের আমাদেরকে ডাকে নাই।আমাদের কোনো দায় নেই এই মৃত্যুর সব দায় কন্টাকটার ও ইঞ্জিনিয়ারের । তিনি শেষমেষ আরও জানান আমি লিখিত ছুটিতে আছি, এসব দায়িত্বে আছেন কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল।

ভাইস প্রিন্সিপালের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান,এই ভবন নির্মাণে দেখাশোনা করার জন্য প্রিন্সিপ্যাল স্যার আমাদের একটা কমিটি গঠন করে দিয়েছেন ।তবে এই মৃত্যু ও নিম্মমানের সামগ্রী ব্যবহার তদন্ত না করে কিছু বলা যাবে না। তবে তিনি জানান যাদের এই কমিটিতে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে তাঁদেরকে ফোন করেও কলেজ ক্যাম্পাসে নিয়ে আসা যাই না। কিভাবে তাঁরা কাজ দেখাশোনা করবে?

  • Save

কিন্তু কলেজে অন্যান্য শিক্ষক সাথে কথা বলে জানা গেছে এ কাজের নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করা হয়েছে। যে সমস্ত মালামাল ব্যবাহার করার কথা ছিল তাঁরা তার এক অংশ ব্যবহার করে নি, যদি ব্যাবহার করত তাহলে এ ধরনের মৃত্যু্র মত ঘটনা ঘটত না ।তবে দুর্নীতিতে কে বা কারা জড়িত আছে কন্টাকটার ও ইঞ্জিনিয়ারের সাথে কথা বললে জানা যেত।

এদিকে কমিটিতে যারা আছেন তাঁরা কেও কন্টাকটার ও ইঞ্জিনিয়ারের মোবাইল নম্বর দিতে রাজি হয় নি।

মৃত্যু্ ব্যাক্তির পরিবারেরর সাথে কথা বলে জানা গেছে, আমাদের পরিবারে একমাত্র উপার্জনকারী হারিয়ে আমারা দিশেহারা,এখন আমরা কি করব?কে আমাদের দেখবে?

কোটচাঁদপুর মডেল থানার ওসি মাহাবুবুল আলম জানান, কোনো লিখিত অভিযোগ হয়নি তবে লিখিত অভিযোগ আসলে আমরা ব্যবস্থা নিব। তবে তিনি আমাদের সংবাদকে জানান,আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি , নিম্ন মানে মাল-সামগ্রী ব্যবহার করার কারনে এই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »
Share via
Copy link
Powered by Social Snap