জামাল ভূঁইয়া সাদরা লড়ে গেলো “বঙ্গবন্ধুর মতো ”।

< 1 min read

সজীব আকবরঃ

বিশ্বকাপ ফুটবলের কোয়ালিফায়িড ম্যাচে কাল জিততে জিততে ভারতে সাথে ড্র করে তৃপ্তির হাসি নিয়েই মাঠ ছেড়েছে বাংলাদেশ। কিন্তু ভারতীয় টিম মাঠ ছাড়লো মাথা নিচু করে নিঃশব্দে। গতকাল কোলকাতার যুব ভারতীয় স্টেডিয়ামে প্রায় ৭০ হাজার দর্শকের মধ্যে ৯৭ শতাংশই ছিলো ভারতের পক্ষে। ফলে এই বিপুল সংখ্যক দর্শকদের হৈ চৈ চিৎকার চেচামেচি ও রেফারিদের পক্ষপাতিত্বের মধ্যেও জামাল ভূঁইয়া সাদরা লড়ে গেলো হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি “বঙ্গবন্ধুর মতো ”

পরিসংখ্যান বলছে, বিশ্ব ফুটবল র‌্যাঙ্কিয়ে বাংলাদেশের চেয়ে ৮৩ ধাপ এগিয়ে আছে ভারত। ভারতের খেলা দেখে তা কিন্তু মনে হয়নি। এর আগে বাংলাদেশ বনাম ভারতের ম্যাচে যেখানে  “ ভারত জিতেছে ১২ বার ”। পক্ষান্তরে লাল সবুজের দামাল ছেলেরা জিতেছে মাত্র তিনবার। গতকাল তো ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এ খেলা শুরুর আগেই পত্রিকাগুলোতে এমন সব শিরোনাম করেছে, তাতে ময়দানের লড়ায়ের আগেই মিডিয়া লড়াইয়েও জিতেছিলো ভারত। ভারতীয় পত্রিকাতেই এমন শিরোনামও এসেছে যে, সুনীল ছেত্রীরা ছুটলে হারিয়ে যাবে বাংলাদেশ। তবে কারা হারালো তা তোলা থাকলো কালের ফ্রেমে। খেলা শুরুর পর থেকেই রেফারিদের জঘণ্য পক্ষপাত ছিলো চোখে পড়ার মতো। আর তাই ফেসবুকেও চলছিলো কড়া সমালোচনা। অনেকেই ফেসবুকে পোস্ট দিলেন রেফারিসহ ১৪ ভারতীর বিপক্ষে লড়ছে বাংলার ১১। নির্লজ্জ ও নিম্নমানের এ রেফারিংয়ের পক্ষপাতিত্বের কারণে শতভাগ পাওনা দুটো পেনাল্টি বঞ্চিত হয়েছে বাংলাদেশ।

  • Save

ভারতীয় ক্রিকেট জোয়ারের মধ্যেও গতকাল কোটি কোটি চোখ লেপ্টে ছিলো টিভিতে। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। অনেক ক্রীড়া সাংবাদিক স্বীকার করেছেন বাংলাদেশের ৩/৪ গোলের ব্যবধানে জিততে পারতো। খেলার ৪২ মিনিটে জামাল ভূঁইয়ার সেট পিসে দুর্দান্ত এক হেডে সাদ উদ্দীন বল জড়িয়ে দেন ভারতের জালে। এ গোলে দর্শকে ঠাসা যুবভারতী স্টেডিয়ামে নেমে আসে অদ্ভুত ভূতুরে নিস্তব্ধতা। এতো কিছুর পরও ৮৮ মিনিট পর্যন্ত এগিয়েছিলো বাংলাদেশ। ভারতের সৌভাগ্য যে অন্তত ড্রে করে তাঁরা মাঠ ছাড়তে পেরেছে। অবশ্য জামাল ভূঁইয়া সাদ আর জীবনদের মুখে যে রহস্যময় হাসিটা লেগে ছিলো ঠোঁটের কোনায়, তা ভারত মনে রাখবে অনন্তকাল।  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »
Share via
Copy link
Powered by Social Snap