দর্শনা টু মুজিবনগর সড়ক দখল মুক্ত হবে কি??

2 minutes

সাংবাদিক সজীব আকবর ও সুচিত্রা রায়ঃ

ভারত সীমান্তবর্তী চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার ব্যস্ততম সড়ক গুলো মধ্যে দর্শনা টু কার্পাসডাঙ্গা ভায়া মুজিবনগর সড়কটি অন্যতম। স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ জাতীয় চারনেতা যথাক্রমে কামরুজ্জামান, তাজ উদ্দিন আহমেদ, ক্যাপ্পটন এম মনছুর আলী ও সৈয়দ নজরুল ইসলামের স্মৃতি বিজড়িত এই সড়কটি দীর্ঘ দিন থেকেই অবৈধ দখলদারদের কবলে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সেখ হাসিনা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসার পর ব্যাপক উন্নয়নের ফলে মুজিবনগর হয়ে উঠে একটি দেশের অন্যতম  পর্যটক এলাকা।

পিকনিক, শিক্ষা সফরসহ প্রতিদিন হাজার হাজার দর্শনার্থীরা আসেন মুজিবনগর ভ্রমণে। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা ভ্রমণ পিপাসুদের জন্য ব্যস্ততম সড়কে পরিণত হয়েছে দর্শনা- মুজিবনগর সড়ক। বাস, মিনিবাস, মাইক্রোবাস, প্রাইভেটকারসহ বিভিন্ন যানবাহন চলাচলের ফলে জেলার অন্যতম প্রধান ব্যস্ততম সড়কে পরিণত হয়েছে দর্শনা- মুজিবনগর সড়ক। বিশেষ করে অবৈধ দখলদারদের কবলে পড়ে সড়কটিতে লেগেই থাকে যানজট। প্রতিনিয়ত ঘটছে ছোট বড় সড়ক দুর্ঘটনা। ঘটছে রক্তহানী ও প্রাণহানীর ঘটনাও কখনো কখনো পঙ্গুত্বও বরণ করছেন পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিটি। তাছাড়া রাস্তার দুই পাশে আছে প্রথমিক বিদ্যালয়, হাই স্কুল, কলেজ সহ অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। পথচারী ছাড়াও বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরার মাঝে মাঝে দুর্ঘটনায় পতিত হচ্ছে । অবৈধ দখলদার উচ্ছ্বেদ না হওয়ায় এলাকাবাসীদের মনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হচ্ছে। প্রশাসন কেন নীরব, এ প্রশ্ন আসছে ঘুরে ফিরেই। যেখানে সারাদেশে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করা হচ্ছে; রাস্তা প্রসস্থ কারা হচ্ছে, কিন্তু দর্শনা মুজিবনগর সড়ক সম্প্রসারণে সড়ক ও জনপথ বিভাগ বা এলজিইডি কোনো দৃশ্যমান ভূমিকা রাখছেনা বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

এলাকায় গুঞ্জন আছে যে, কার্পাসডাঙ্গা ও  ভূমি অফিসের কিছু অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীর সহযোগিতায় মাসোহারা ও মোটা অংকের টাকার চুক্তিতে সড়কের দুই পাশে গড়ে উঠেছে পাকাঁ ইমারত, দোকান ও বসত বাড়ি। িএসব অর্থপিশাচ সরকারী কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কারণেই দর্শনা- মুজিবনগর সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে থাকছে অবৈধ দখলদারদের কবলে। অবৈধ ভাবে সরকারি জায়গা দখল করে গড়ে তোলা পাকা বাড়ি-ঘর, দোকানসহ সীমানা প্রাচীরের কারণে দিন দিন রাস্তা ছোট হয়ে আসছে। যানবাহন চলাচল মারাত্মকভাবে বিঘ্নি হচ্ছে।

দর্শনা-মুজিবনগর সড়কে দীর্ঘদিন থেকে সবচেয়ে বেশী দখলদারদের কবলে থাকা এলাকা গুলো, দর্শনা পুরাতন বাজার, ঘুঘুডাঙ্গা, রামনগর, গলাইদড়ি ব্রীজের দুইপাশ, প্রতাপপুর, চন্ডিপুর, কুড়ুলগাছি, ধান্যঘরা, দুর্গাপুর, কার্পাসডাঙ্গা বাজার এলাকা, পুচি বটতলা, আটকবর মোড় ও আট কবর এলাকা। গলাইদড়ি ব্রীজের দুই পাশসহ অবৈধ দখলদাররা গড়ে তুলেছে পাকা ঘর ও দোকান। কার্পাসডাঙ্গা বাজারে কথিত বন্দবস্ত বা ডিসিআর নামক চুক্তির মাধ্যমে সড়কের জমি পৈত্রিক সম্পদে পরিণত হয়েছে। অবৈধ দখলদারা কোন কিছুর তোয়াক্কা না করে, সরকারী জায়গা দখল করে পাকা ইমারত নির্মান করেছে। চুয়াডাঙ্গা জেলার জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকারসহ তারূণ্যের প্রতীক দামুড়হুদা ইউএনও মুনিম লিংকনের  কঠোর ও তড়িৎ হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকাবাসী।

(তথ্যসূত্রঃ চুয়াডাঙ্গা টাইমস্)

(শ্রণীবদ্ধ বিজ্ঞাপন ও সংবাদ সংক্রান্ত বিষয়ে যোগাযোগ করুন 01911 6777 93 )

Translate »
Share via
Copy link
Powered by Social Snap