Logo Design Logo Design Logo Design

দেবীগঞ্জে জিম্মি কারে রোগীর কাছে টাকা নেওয়ায় ভূয়া ডাক্তারের বিরুদ্ধে অভিযোগ

2 minutes

  • Save

দেবীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

ওর মা একটু রাগ দেখিয়েছে কাজ কাম করিস না এই রাগের জের ধরে বাড়িতে ঘাস মারা ঔষধ ছিলো সেটা খেয়ে নিয়েছে আমরা জানতে পাই তারাহুরো করে ডাক্তারের মোবাইলে কল দেই তিনি বললো আমার চেম্বারে নিয়ে আসেন। অন্য কথাও নেওয়ার দরকার নাই। আমরা আর কিছু না ভেবে চেম্বারে নিয়ে আসলাম। আমার মেয়েকে বাঁচান। তিনি দুটো ইনজেকশন দিলো আর বললো ওয়াশ করতে হবে আমি বললাম করেন কি করতে হবে। তিনি ওয়াশ করলো। এমনটি ঘটেছে পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার দন্ডপাল ইউনিয়নের কালীগঞ্জ বাজারে। ঘটনাস্থলে গিয়ে জানা যায় কালীগঞ্জ বাজারে মোঃ নজরুল ইসলাম নামের একজন গ্রাম্য চিকিৎসক পাশ্ববর্তী দেবীডুবা ইউনিয়নের গালান্ডী পাইকার পাড়া গ্রামের হরিপ্রসাদ রায় এর মেয়ে লিপি রাণী কে চিকিৎসার নামে মটা অংকের টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠে। হরিপ্রসাদ রায় জানান আমার মেয়ের কীটনাশক ঔষধ খাওয়া ওয়াশ করতে আমার কাছ থেকে ২৪০০ হাজার টাকা চায়। আমিতো অবাক হয়ে যাই সামান্য চিকিৎসার জন্য ২৪ হাজার টাকা। নজরুল ডাক্তার বলছে ঔষধের বিল হয়েছে ৯ হাজার টাকা। আমি গরিব মানুষ এমনিতেই বর্তমানে কাজকর্ম নেই তার উপর এতোগুলো টাকা কথা থেকে দিবো। আমি ওনাকে ৫ হাজার টাকা দেই আর হাতে পায়ে ধরে বলি আর ২ হাজার টাকা দিবো। তিনি কোন ক্রমেই আমার মেয়েকে রিলিজ দিবে না পুরো টাকা পরিশোধ না করা পর্যন্ত। আমি বাজারে এসে বসে চিন্তায় পড়ে যাই এমন সময় কিছু বাজারের লোক আমার কথা শুনে আমাকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসে। ক্ষুব্ধ জনতা আমার মেয়েকে তার চেম্বার থেকে নিয়ে আসে। ঘটনাস্থলে দেবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পক্ষে স্যানেটারি ইন্সপেক্টর আসেন এবং লিপি রাণীকে চিকিৎসার জন্য দেবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রেরণ করেন। স্থানীয় সূত্রে এবং সরেজমিনে গিয়ে জানা যায় নজরুল ইসলাম একজন ভূয়া চিকিৎসকও বটে নিজের চেম্বারে বিভিন্ন অপারেশন করাও অভিযোগ পাওয়া যায় যা কোন ভাবে বৈধতা নেই। স্থানীয়রা জানান তিনি এর আগেও এইরকম নেক কার জনিত ঘটনা ঘটিয়েছেন। তার অবৈধভাবে গরীব মানুষের কাছ থেকে উপার্জেনের টাকার টাকা দিয়ে গড়ে তুলেছে কালীগঞ্জ বাজারে আলিশান বাড়ী। নজরুল ইসলামের (ভূয়া ডাক্তার) স্ত্রী রাজিয়া সুলতানা দেবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের ইউনিয়ন পর্যায়ে স্বাস্থ্য কর্মী। এই বিষয় নিয়ে নজরুল ইসলামের বাসায় বা চেম্বারে গেলে তিনি গণমাধ্যমকর্মী আসার খবর পেয়ে বাড়ী থেকে পালিয়ে যায়। তার স্ত্রী রাজিয়া সুলতানা কোনক্রমেই বাড়ীর দরজা খুলতে রাজি হননি এবং গনমাধ্যমকর্মীদের সাথে কথা বলেনি। নজরুল ইসলাম ( ভূয়া ডাক্তার) এর মুঠো ফোনে কল দিলে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে কোন কথা না বলে ফোন লাইনটি কেটে দেয় এবং পরে আর রিসিভ করেনি। দেবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দেওয়ার কথা রয়েছে।
স্থানীয়রা জানায় নজরুল ইসলাম একজন ভূয়া চিকিৎসক তার কোন সার্টিফিকেট নেই তিনি গ্রামের সহজসরল মানুষের কাছ থেকে কৌশলে চিকিৎসার নামে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয় যা গ্রামের সহজসরল মানুষেরা না বুঝে দিতে বাদ্য হন। এই নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। স্থায়ী সচেতন মহল নজরুল ইসলাম (ভূয়া ডাক্তার)এর বিচারের দাবিতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন যাতে এইভাবে গ্রামের সহজসরল মানুষের আর ক্ষতির মুখে পরতে না হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »
Share via
Copy link
Powered by Social Snap