মধ্যপ্রাচ্যে এবার শান্তি পরিকল্পনা বিশ্ব মোড়লের

2 minutes
  • Save

আমাদের সংবাদ ডেস্ক রিপোর্টঃ

ফিলিস্তিনের বারবার প্রত্যাখ্যানের পরও মধ্যপ্রাচ্য শান্তি পরিকল্পনা প্রকাশ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসে ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন  নেতানিয়াহুকে পাশে নিয়ে এ পরিকল্পনা ঘোষণা করেন তিনি।

পরিকল্পনা উন্মোচনের সময় ট্রাম্প বলেন, শান্তির পথে ইসরায়েল আজ বড় পদক্ষেপ নিয়েছে। আমার লক্ষ্য উভয়ের জন্য সমান সুযোগের সমাধান হাজির করেছে। খবর বিবিসির

মার্কিনপ্রেসিডেন্ট দাবি করেছেন, এই প্রথম বারের মতো ইসরায়েল একটি ধারণামূলক মানচিত্র প্রকাশ করতে রাজি হয়েছে।শান্তিস্থাপনের জন্য নিজেদের ভূখণ্ড ছেড়ে দিতেসম্মতও হয়েছে।

তিনি বলেন, ইসরায়েল অনেক করেছে। আমরা তাদের সঙ্গে একটি যৌথ কমিটি গঠন করব ধারণামূলক মানচিত্রের আরও বিস্তারিত ও নির্দিষ্ট করতে। যাতে করে দ্রুতই স্বীকৃতি দেওয়া সম্ভব হয়।

ট্রাম্প দাবি করেন, ওই মানচিত্রে ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড দ্বিগুণ হবে এবং পূর্ব জেরুজালেমে ফিলিস্তিনের রাজধানী থাকবে এবং যুক্তরাষ্ট্র সেখানে দূতাবাস চালু করবে। 

এসময় ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইসরাইলের জন্য এটা এক বিশাল পরিকল্পনা। শান্তির জন্য এটা চমৎকার পরিকল্পনা।

নেতানিয়াহু বলেন, ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডের ওপর ইসরাইলি নিয়ন্ত্রণের বর্তমান অবস্থা একটি চুক্তিতে পৌঁছানোর আগ পর্যন্ত বহাল থাকবে। তার ভবিষ্যদ্বাণী মতে, এতে বহু বছর লেগে যাবে।

ইতোমধ্যে ফাঁস হওয়ার পরিকল্পনাটি প্রত্যাখ্যান করেছে ফিলিস্তিন। 

মঙ্গলবার গাজা উপত্যকায় কয়েক হাজার ফিলিস্তিনি প্রতিবাদ করেছেন। দখলকৃত পশ্চিমতীরে অতিরিক্ত সেনা মোতায়েন করেছে ইসরায়েল। 

রাতে প্রস্তাবটি নিয়ে জরুরি বৈঠকে বসবেন ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস। শনিবার জরুরি বৈঠকে বসবে আরব লিগ।

ইসরায়েলি কর্মকর্তারা বলেছেন, বুধবার প্রস্তাবটি নিয়ে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে আলোচনার জন্য মস্কো যাবেন নেতানিয়াহু। 

উল্লেখ্য, ঐতিহাসিকভাবেই মধ্যপ্রাচ্যের শান্তি প্রশ্নে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান ইসরায়েল-ঘেঁষা। বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার এক বছরের মধ্যে ২০১৭ সালের ৬ ডিসেম্বর জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী স্বীকৃতির ঘোষণা দেন। এরপরে ইসরায়েলের সঙ্গে আর কোনও শান্তি আলোচনায় মার্কিন মধ্যস্ততা মানবে না বলে ঘোষণা দেয় ফিলিস্তিনিরা।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের তরফে বারবারই ডিল অব দ্য সেঞ্চুরি বা শতাব্দীর সেরা চুক্তি নামে পরিচিত একটি শান্তি পরিকল্পনা ঘোষণার কথা বলা হয়েছে। ট্রাম্পের উপদেষ্টা ও জামাতা জারেড কুশনার এই পরিকল্পনার নেপথ্যে কাজ করেছেন। বিভিন্ন সময়ে এই পরিকল্পনার বিভিন্ন অংশ সংবাদমাধ্যমে উঠে আসলেও যুক্তরাষ্ট্র তা আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করেনি।

Translate »
Share via
Copy link
Powered by Social Snap