মহেশপুরে হুমকীর মুখে হনুমান।প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা

< 1 min read
  • Save

এম বুরহান উদ্দীন,শৈলকুপা ,ঝিনাইদহ থেকেঃ

মানুষের মাঝে বসবাস করে অনেক জাতের প্রাণী। তেমনি ঝিনাইদহের মহেশপুরের ভবনগর গ্রামে আছে বনে জঙ্গলে বসবাস করা হনুমান। কিন্তু এখন এই প্রাণীটাও পড়েছে বিশাল হুমকির মুখে। ফাঁদ পেতে মারা হচ্ছে হনুমান গুলোকে। উপজেলার ভবনগর গ্রামে বহুকাল থেকেই বনে জঙ্গলে এ সকল হনুমান বাস করে আসছে। স¤প্রতি খাদ্য সংকট, গাছগাছালি নিধনের কারণে মৌসুমী ফসল ক্ষতি করায় এলাকার মানুষ ফাঁদ পেতে হনুমান মেরে ফেলছে। এরকমই জানিয়েছেন এলাকাবাসী। জানা যায়, চৈত্র মাসে পানি খাওয়ার জন্য হনুমান দল বেধে ভবনগর গ্রামের জনৈক ব্যক্তির বাড়িতে আসতো। তিনি তখন পানিতে বিষ মিশিয়ে ২০-৩০টি হনুমান মেরে ফেলে। এ সময় স্থানীয় প্রশাসন তাকে আটক করে জেল-হাজতে পাঠায়। তার পর তেকে হনুমান মারা বন্ধ ছিল। ঘটনাটি প্রায় এক দশক আগের ঘটনা। কিন্তু এখন খাদ্য সংকটের কারণে কৃষকদের পেয়ারা, পেপে, কলা, আমসহ নানা ধরণের ফসলের ক্ষতি করার কারণে কৃষকরা ফাঁদ পেতে হনুমান মেরে ফেলছে। গ্রামটি ভারতের সীমান্তে হওয়ার কারণে মাঝে মধ্যে ভারতীয় হনুমান ও বাংলাদেশী হনুমানের মধ্যে মারামারি হয় তখন কিছু সংখ্যক হনুমান মারা যায়। কিন্তু এখন মানুষের কারণে সেটি ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে। গ্রামবাসী জানান, এখানে আগে কয়েকশ হনুমান থাকতো। বর্তমানে তা কমে ১শ’র মধ্যে চলে এসেছে। হনুমান রক্ষনাবেক্ষনের জন্য সরকারীভাবে কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। এলাকার সচেতন মহল হনুমান রক্ষার্থে সরকারীভাবে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছে। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুজন সরকার জানান, কেউ যদি হনুমান মারে তাহলে বন্যপ্রাণী হত্যা আইনে মামলা হবে এবং খাদ্য সংকটটি সমাধান করা যায় কিনা সে বিষয়ে আমি ব্যবস্থা নিবো।

Translate »
Share via
Copy link
Powered by Social Snap