কয়রায় স্বেচ্ছাসেবক লীগের জাতীয় শোক দিবস পালন

0
98

মো: ইকবাল হোসেন, কয়রা, খুলনা: কয়রায় বিভিন্ন ইউনিয়নে বিনম্র শ্রদ্ধা ও যথাযথ মর্যাদায় স্বেচ্ছাসেবক লীগের উদ্যোগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়েছে।সোমবার (২৯ আগস্ট) কয়রা উপজেলা আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ে কয়রা সদর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের আয়োজনে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। শোক দিবসের আলোচনা সভায় সদর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোল্যা কহিনুর আলমের সভাপতিত্বে ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ইমদাদুল হক টিটুর পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন খুলনা জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শেখ মো: আবু হানিফ।

এসময় শেখ মো: আবু হানিফ বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশকে পরাধীনতার শিকলে আবদ্ধ করে রাখার পাশাপাশি জাতির পিতাকে মানুষের হৃদয় থেকে মুছে ফেলার পাঁয়তারা করেছিল খুনিরা। কিন্তু বাংলাদেশের মানচিত্র যতদিন থাকবে, জাতির পিতাকে মানুষ কখনো ভুলতে পারবে না। তারা দেশকে অস্থিতিশীল করতে নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। এসব ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে বাংলাদেশ এখন বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। দারিদ্রতা আর দুর্নীতির পরিবর্তে এখন বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের কাতারে পৌঁছে গেছে।

জাতীয় পত্রিকায় সাংবাদিক নিয়োগ ২০২২

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু কণ্যা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যতদিন থাকবে এদেশের উন্নয়ন-অগ্রযাত্রা কেউ ঠেকাতে পারবে না। এসময় বঙ্গবন্ধুর নৃশংস হত্যাকান্ড ও স্বাধীনতা যুদ্ধে তাঁর অসামান্য অবদান এবং যুদ্ধ পরবর্তী সময়ে দেশ গঠনের ভূমিকা নিয়ে আলোচনা করা হয়।

সভায় প্রধান বক্তা জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এম আজিজুর রহমান রাসেল বলেন, আমরা অত্যন্ত অকৃতজ্ঞ জাতি। যার ডাকে এবং নেতৃত্বে মাত্র নয় মাস যুদ্ধ করে বাংলাদেশ স্বাধীন করেছিলাম, চার বছরের মাথায় আমরা তাকে নৃশংসভাবে হত্যা করেছি। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে যে ক্ষতি আমাদের হয়েছে, তা কখনোই শোধ হবার নয়।

অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও কয়রা উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক এ্যাড. মোশাররফ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান এস এম বাহারুল ইসলাম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ফেরদৌস রহমান, ওহিদুজ্জামান, জাহাঙ্গীর হোসেন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য সচিব জি এম আব্দুর রবিক, জেলা ছাত্রলীগ নেতা মৃনাল কান্তি বাছাড়, শেখ মো: রাসেল, শেখ হেলাল বাবু, তৈয়েবুর রহমান, শেখ রায়হান মুন্না, জয়ন্ত গাঈন, প্যানেল চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান, শ্রমিকলীগ নেতা আমিরুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মেজবাহ উদ্দিন মাছুম, হুমায়ুন কবির হিরো, রোকনুজ্জামান কাজল, ডি এম ইখতিয়ারউদ্দিন হিরো, ছাত্রলীগ সাধারন সম্পাদক, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা, আক্তারুল ইসলাম, জেড এম হুমায়ুন কবির নিউটন, পলাশ, আনিচুর রহমান প্রমুখ।

এসময় উপজেলার বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা কর্মী উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা সভা শেষে দোয়া মাহফিলে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তাঁর পরিবার ও সকল শহীদদের বিদেহী আত্নার মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়।