দুস্থ অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে ভালোবাসি- মতিয়ার রহমান

0
272

এম ডি হাফিজুর রহমান, স্টাফ রিপোর্টারঃ আমি ওয়ার্ড মেম্বার। ওয়ার্ডের জনগণই আমার পরিবার৷ পরিবারের প্রধান হিসেবে পরিবারের কোন সদস্যের কি প্রয়োজন সেটা বোঝার চেষ্টা করি এবং সেই চাহিদা পূরন করার চেষ্টা করি। তাছাড়াও আমি গরীবের মেম্বর, দুস্থ অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতেই ভালোবাসি। এ প্রতিবেদককে এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার ৩নং উধুনিয়া ইউনিয়য়ের ১নং ওয়ার্ড মেম্বার মোঃ মতিয়ার রহমান।

তিনি আরও বলেন, আমি ১৯৭৮ সাল থেকে ছাত্রলীগ’র মাধ্যমে রাজনীতিতে এসেছি। ১৯৮০ সাল থেকে ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত যুবলীগ করেছি। ১৯৮৪ সাল থেকে ২০০৩ সাল পর্যন্ত ইউনিয়ন আওয়ামীগের শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছি। ২০০৩ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি ছিলাম। ২০১৯ সাল থেকে বর্তমান ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করছি। এর আগেও তিনবার এই ওয়ার্ডের মেম্বার ছিলাম। আমার চিন্তা ধারা হচ্ছে নিজেকে সৎ রেখে এই ওয়ার্ডকে মডেল ওয়ার্ড তৈরি করা। গ্রামের মানুষকে শহরের সেবা দিতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়ে উন্নয়ন। আমার ওয়ার্ড হবে ঘুষ দুর্নীতি মুক্ত ওয়ার্ড। বিগত বছরে বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, রিলিফের কার্ড স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার সাথে করে দিয়েছি। আমার ওয়ার্ডেয়লর দুই একটা রাস্তা ব্যতীত এমন কোনো রাস্তা নাই যে আমি কাজ করি নাই। আমার কাজের সাক্ষী ওয়ার্ডের জনগণ।

চতুর্থ বারের মতো আমাকে মেম্বার নির্বাচিত করায় আমি সবার প্রতি কৃতজ্ঞ। মানুষ মাত্রই ভুল করে। বিগত বছরে আমারও অনেক ভুল থাকতে পারে বা ভুল হয়েছে। সেগুলো যেন আর পুনরায় না হয় সেদিকে খেয়াল রেখে কাজ করবো। ইনশাআল্লাহ আমার ওয়ার্ডের কেই না খেয়ে থাকবেনা। আমার ওয়ার্ড হবে ঘুষ দুর্নীতি মুক্ত মডেল ওয়ার্ড।

গাড়েশ্বর গ্রামের বাসিন্দা প্রভাষক মাসুদ রানা মাসুম বলেন, মতিয়ার রহমান এমন একজন রাজনৈতিক গুণসম্পন্ন ব্যাক্তি৷ তিনি জানেন কিভাবে উন্নয়নমূলক কাজ করা যায়৷ কিভাবে জনগণের সেবা করা যায়৷ তাছাড়া এর আগেও তিনি তিন বার এই ওয়ার্ডের মেম্বর হিসেবে ছিলেন৷ সে সময় তিনি ওয়ার্ডের বেশ উন্নয়ন করেছেন৷ আমাদের গ্রামের রাস্তা হয়েছিলো তিনি মেম্বর থাকাকালিন সময়েই৷ এবারও আমারা তাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছি৷ যাতে করে অসমাপ্ত কাজগুলো সম্পন্ন হয়৷

তেলীপাড়া গ্রামের বাসিন্দা আব্দুর রশিদ বলেন, মতিয়ার মেম্বার চায় সবার ভালোবাসা৷ আর সেই ভালোবাসা পাওয়ার জন্যই সে কাজ করে৷ এর আগের বার আমাদের তেলীপাড়া গ্রাম থেকেই মেম্বার হয়েছিল৷ কিন্তু তেমন কিছু উন্নয়ন দেখা যায়নি৷ তাই এবার মতিয়ার রহমান কে মেম্বার বানিয়েছি৷ কারন গ্রামের উন্নয় করতে হলে সৎ যোগ্য পার্থীর প্রয়োজন আছে৷

বেলাই গ্রামের বাসিন্দা সামাদ বেপারী বলেন, বেলাই গ্রামের ভোটার সবাই মতিয়ার সাহেবকেই ভোট দিয়েছে৷ আমাদের গ্রামের রাস্তা তিনি করবে এটা আমরা মনে প্রাণে বিশ্বাস করি৷ কারন তিনি সৎ লোক জনগণের টাকা মারে না৷

ফাজিল নগর গ্রামের বাসিন্দা ময়নুল হোসেন আনছারী বলেন, মতিয়ার রহমান হলো গরীবের মেম্বর৷ সে সব সময় গরীব, দুঃখী, অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ায়৷ সে গরীব অসহায়ের হক কখনোই মেরে খায় না৷ তাই আমাদের ওয়ার্ডের ভোটারা তাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছে৷ এর আগে সে মেম্বার না হয়েই তিনি অনেক অসহায়ের পাশে দাড়িয়েছে নিজ অর্থায়নে৷ ভোটাররা তার কর্মের জন্যই তাকে নির্বাচিত করেছে৷ তিনি মিশুক মানুষ সবার সাথেই তার ব্যবহার সুন্দর।