নোয়াখালী সুবর্ণচরে ইউপি সদস্যের সহযোগিতায় ১৮০বোতল ফেনসিডিল এবং ৩০০ গ্রাম গাঁজা জব্দ

0
334

মোঃ রাশেদুল ইসলাম- গত বুধ বার ০৯-০২-২২) রাত ৭ টার সময় নোয়াখালী সুবর্ণচর উপজেলার-৮ নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, আলহাজ্ব মহি উদ্দিন চৌধুরীর নেতৃত্বে- ৬নং ওয়ার্ডে গাঁজা ও ফেনসিডিল সহ ব্যবসায়ি হোসেনের বাড়ি থেকে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মোহাম্মদপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যদের কে দিয়ে অভিযান চালিয়ে ১৮০ বোতল ফেনসিডিল ও ৩০০ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করা হয়, মোঃ হোসেনের বাড়ি ৬ নং ওয়ার্ডের আক্তার মিয়ার হাটের পূর্ব পাশে । স্থানীয় সূত্রে জানা যায়- ব্যবসায়ী হোসেন অনেক দিন যাবত এই ব্যবসার সাথে জড়িত,কোনো প্রমাণ ছাড়া তাকে কেউ ধরতে পারে নি, কিন্তু ৮ নং মোহাম্মদ পুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সহযোগিতার আজ এই মাদক ব্যবসায়ী আটক হয়েছে। এই ব্যপারে ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে যোগাযোগ করলে আমাদের কে জানায় – আমার নয়টি ওয়ার্ডে কোনো দুর্নীতি, চাঁদা বাজী, ইভটিজিং, ও মাদক চোরাকারবারিকে ঠাই দেওয়া হবে না,তিনি জনগণকে উদ্দেশ্য করে বলেন যারা এই সব কাজের সাথে জড়িত আছেন সময় থাকতে ভালে হয়ে যান। আর না হয় মোহাম্মদপুর থেকে চলে যাও। আমার ইউনিয়নে ( ৮নং মোহাম্মদপুর) এখানে এগুলো চলবে না,- এই ব্যাপারে চর জব্বর থানার অফিসার ইনচার্জ জানায় – তাকে অতি তাড়াতাড়ি আইনে আওতায় আনা হবে- ইনশআল্লাহ। তিনি আরো জানান – দেশে চোরাকারবারি, ইভটিজিং, এবং মাদক ব্যবসায়ীকে উপ যুক্ত সাজা না দিলে দেশ উন্নতি হবে না, দেশের সকল কাজে মাদক ব্যবসায়ী জড়িত।

ব্যবসায়ী হোসেনের বাড়ি তল্লাশি কাজে সহায়তা করছে- মোঃ আজগর হোসেন, ( ছাত্র লীগ) মোঃ নুর আলম(ইউপি সদস্য ৯ নম্বর ওয়ার্ড)এবং মোঃ জিয়া ( ইউপি সদস্য) মোঃ খলিল( ইউপি সদস্য)মোঃ আমির হোসেন( ইউপি সদস্য) মোঃ সাইফুল ইসলাম – এবং গ্রাম পুলিশ সহ অনেকে । ইউপি সদস্যরা জানায়- স্থানীয়রা হোসেনের ছেলের কাছ থেকে একটি ফেনসিডিলের বোতল দেখে আমাদের কে খবর জানায় এবং সাথে সাথে আমরা বাড়িতে এসে হাজির হই এবং তার ছেলের বক্তব্য অনুযায়ী তার রান্না ঘর থেকে এবং মোরগের ঘর থেকে এই বোতল গুলে উদ্ধার করছি এবং অনেক গুলো বাক্স পেয়েছি যা সে অতিতে বিক্রি করছে। আমরা চর জব্বর থানায় কল করলে পুলিশ এসে তার ছেলেকে নিয়ে যায় এবং হোসেন কে ধরার চেষ্টা চলছে,বলে ইউপি সদস্য রা জানায়। ইউপি সদস্য রা আমাদেরকে আরো জানায়, মোহাম্মদ পুর ইউনিয়নের আর কারো বাড়িতে সন্ধান পাওয়া গেলে তাদের বাড়িতে ও তল্লাশি করা হবে ।স্থানীয়দের দাবি মাদক মুক্ত ৮ নং মোহাম্মদ পুর ইউনিয়ন চাই।