মেহেন্দিগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে হামলা।

0
371

স্টাফ রিপোর্টার// মেহেন্দিগঞ্জ ০৯ নং জাঙ্গালীয়া ইউনিয়নে ০২ ওয়ার্ডের উত্তর সিন্নিরচর এলাকায় জমি সংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে জাহাঙ্গীর রাড়ী’র স্ত্রী পারভীন বেগম(৫০) এর উপর হামলা ও মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে হামলা করে জখম করেছে প্রতিপক্ষরা।

স্থানীয়রা জানান ০২নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা ইসমাইল বয়াতির ছেলে শফি বয়াতি, মুসা বয়াতির ছেলে, রাসেল বয়াতি, হাছান বয়াতি ও ফরহাদ বয়াতি। কামাল বেপারির ছেলে মিরাজ বেপারি ও রিয়াজ বেপারি গং রা গতোকাল বিকেল ২ঃ৩০ মিনিটের দিকে জাহাঙ্গীর রাড়ি’র বসত বাড়িতে আসে, এবং চিল্লাপাল্লার আওয়াজ পাওয়া যায়। এরপর আমরা গেলে দেখতে পাই তারা(উপরে উল্লেখিত ব্যক্তি) সবাই হাতে লাঠিসোঁটা নিয়ে বাড়ির চারপাশে ঘুরাফেরা করছে এবং এক পর্যায়ে বাড়িঘর ভাঙ্গচুর করে এবং জয় ও জয়ের মায়ের উপর হামলা করে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায় যে, অভিযুক্ত ব্যক্তিরা দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে জাহাঙ্গীর রাড়ি’র বাড়ি হামলা চালায়, তারা রাম-দা, চাইনিজ কুড়াল ও হকস্টিক নিয়ে জয় ও জয়ের মায়ের উপর হামলা চালায় এবং এক পর্যায়ে শফি বয়াতি পারভীন বেগম কে রাম-দা’র বাট দিয়ে এলোপাতাড়ি মারধর করে এবং ছুড়ি দিয়ে হাত কেটে ফেলে। সূত্রে আরো জানা যায় যে, পারভীন বেগম’র ঘরে ঢুকে আলমারি ভেঙ্গে নগদ অর্থ ও ৫ ভরি স্বর্নলংকার নিয়ে যায় এবং পারভীন বেগম কে হাতে কোপ দিয়ে জখম করে। এক পর্যায়ে পারভীন বেগম অজ্ঞান হলে স্থানীয় লোকজন ও পারভীন বেগম’র ছেলে হাবিবুর রহমান জয় উদ্ধার করে মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন, কর্তব্যরত চিকিৎসক অবস্থার অবনতি দেখায় ভর্তি প্রদান করেন। পরবর্তীতে থানা পুলিশ থেকে এস আই রফিকুল ইসলাম হাসপাতালে পারভীন বেগম কে পরিদর্শন করেন। পরবর্তীতে হাবিবুর রহমান জয় মেহেন্দিগঞ্জ থানায় মামলা করতে গেলে এস আই নজরুল মামলা না করার পরামর্শ দেন এবং সাধারণ ডায়েরি করতে বলেন, এবং আরো বলেন যে, এসব বিষয় নিয়ে মামলা করার দরকার নাই, সাধারণ ডায়েরি করলেই হবে।

পরবর্তীতে সাধারণ ডায়েরি করতে গেলে সেখানে স্বর্নলংকার, নগদ অর্থ ও রামদা, চাপাতির কথা উল্লেখ করতে গেলে এস আই নজরুল বলেন, এসব লিখলে অভিযোগ নেওয়া হবে না, আর রাম দা, চাপাতি? এসব এখন সবার ঘরে ঘরে আছে, এসব কোন বিষয় না, এগুলা থাকবেই। আপনি যদি স্বর্নলংকার ও নগদ অর্থ বাদ দিয়ে জিডি করেন, তাহলে জিডি নেওয়া হবে, না হলে নেওয়া হবে না, আপনি বের হন, আপনি চলে যান। কাল আসেন। এসব বলে ল্যাপটপ বন্ধ করে ডেস্ক থেকে কম্পিউটার রাইটার কে উঠে যেতে বলে এস আই নজরুল।

এ ব্যাপারে মেহেন্দিগঞ্জ থানার সেকেন্ড অফিসার আরিফ হোসেন বলেন, আসলে বিষয় টা তেমন না, ডিআইজি অফিস থেকে ফোন আসছে এই ঘটনার জন্য, এবং ডিআইজি অফিস থেকে এসবের কোন কথা বলা হয় নি, তাই এস আই নজরুল ওভাবে বলতে চায় নি, বুঝাতে চেয়েছে, এসব কথাগুলো বলা হয় নি ডিআইজি অফিস থেকে। তবে, অভিযোগ কারী আরো বলেন, আমার প্রতিপক্ষ প্রভাবশালী হওয়ায় তারা বলে, থানায় গিয়ে লাভ নেই, থানা ম্যানেজ করা, তাই হয়তো থানায় আমার মামলা বা অভিযোগ গ্রহন করেন নি।