শ্রীকৃষ্ণের জন্মতিথি উপলক্ষে বশেমুরবিপ্রবিতে জন্মাষ্টমী উৎযাপন

0
179

হৃদয় সরকার, বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ- পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের শুভ ৫২৪৮তম আবির্ভাব তিথি(জন্মাষ্টমী) উপলক্ষে গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে।১৮আগস্ট(বৃহস্পতিবার) সকাল ৮ঃ০০ ঘটিকা থেকে মঙ্গলদ্বীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা করা হয়।এসময় সকাল ১১ঃ০০ঘটিকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মন্দির থেকে বণাঢ়্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন চত্ত্বর পরিভ্রমণ করে কেন্দ্রীয় মন্দির ফটকের সামনে এসে শেষ হয়। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের সনাতনী ধর্মাবল্বমী শিক্ষার্থী এবং বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।শোভাযাত্রা শেষে শ্রীমদ্ভগবদগীতা পাঠের মাধ্যমে নবাগত সনাতনী ধর্মাবল্মবী শিক্ষার্থীদের মন্দিরে বরণ করে নেওয়া হয়। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয় পত্রিকায় সাংবাদিক নিয়োগ ২০২২

নবীনবরণ শেষে পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের শতনাম পাঠ করা হয় এবং আরতি কীর্তন করা।নবীনবরণ শেষে শ্রীকৃষ্ণের জন্মতিথি উপলক্ষে সনাতন ধর্মীয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শেষে ধর্মীয় আলোচনা করা হয়। জন্মাষ্টমী উপলক্ষে অনুষ্ঠানে উপস্থিত বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের প্রভাষক পার্থ সারথী রায় বলেন, প্রতি বছর আমরা কেন্দ্রীয় মন্দিরে জন্মাষ্টমী অনুষ্ঠান পালন করে থাকি। এবছরও সেটি করার চেষ্টা করেছি। তবে আগস্ট মাস(শোকের মাস) হওয়ার কারনে যতটা সম্ভব রাষ্ট্রীয় নিয়ম-কানুন অনুসরণ করে সনাতন ধর্মীয় অনুশাসন মেনে এ অনুষ্ঠানটি আয়োজন করেছি। এ বিষয়ে তিনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, প্রতিবছর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদেরকে নানাভাবে সহযোগীতা করে থাকেন, এবছরও আমরা প্রশাসন থেকে সহযোগিতা পেয়েছি এবং ভবিষ্যতেও সহযোগিতা পাব বলে আশা রাখি। তিনি আরো বলেন পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণের পূজা অর্চনা করে সনাতন ধর্মাবলম্বী তথা সমস্ত শিক্ষার্থীদের এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক কল্যান কামনা করি। বক্তব্যে তিনি সনাতন ধর্মাবল্মবী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে সনাতনী সংস্কৃতি ও সনাতনী রীতিনীতি মেনে চলার অনুরোধ জানান।আলোচনায় আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ব্যাংকের এ.ডি. রাঘব কীর্ত্তন দাস। এসময় তিনি নবাগত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে ধর্মীয় বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন এবং সনাতনী শিক্ষার্থীদেরকে শ্রীমদ্ভদবদগীতা অধ্যয়নের জন্য আহ্বান করেন।