সেভ দ্য রোড-এর সর্বশেষ প্রতিবেদন : ৪ মাসে ৫৭৭ জনের সড়কমৃত্যু : নদীমৃত্যু শতাধিক

0
129

পথেপথে মৃত্যুমিছিল বন্ধে যথাযথ পদক্ষেপের দাবিতে ৪ মাসের পথদূর্ঘটনার তথ্য প্রতিবেদন পাঠ এবং অবস্থান কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়েছে। আকাশ-সড়ক-রেল ও নৌপথকে নিরাপদ এবং যাত্রী-মালিক-শ্রমিক অধিকার রক্ষায় দেশের একমাত্র স্বেচ্ছাসেবি সংগঠন সেভ দ্য রোড গত ১২ যুগের পথচলার ধারাবাহিকতায় ১২ মে বেলা ১১ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ কর্মসূচী পালন করে। প্রতিষ্ঠাতা মোমিন মেহেদীর সভাপতিত্বে এতে লিখিত প্রতিবেদন পাঠ করেন মহাসচিব শান্তা ফারজানা। বক্তব্য রাখেন সেভ দ্য রোড-এর ভাইস চেয়ারম্যান বিকাশ রায়, ঢাকা সাব এডিটরস কাউন্সিলের সিনিয়র সহ-সভাপতি আনজুমান আরা শিল্পী, সাংগঠনিক সম্পাদক মহিদুল মল্লিক, ইভানা শাহীন প্রমুখ।

প্রতিবেদনটি নিম্নরূপ হুবহু তুলে ধরা হলো:

প্রিয় সংবাদযোদ্ধাগণ
সালাম ও শুভেচ্ছা নিবেন। সেভ দ্য রোড-এর অঙ্গীকারৎ সড়ক দূর্ঘটনা থাকবে না আর। এই শ্লোগানকে সামনে রেখে আমরা এগিয়ে চলার ধারাবাহিকতায় আজকের এই প্রতিবেদন পাঠ ও অবস্থান কর্মসূচীতে আপনারা যারা উপস্থিত; সবাইকে কৃতজ্ঞতা-ভালোবাসা-শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি। করোনা পরিস্থিতির দ্বিতীয় ঢেউ সামলে করোনাভাইরাস এ কারণে লকডাউন ঘোষণা করলেও সব বাঁধা ভেঙ্গে চলছে সড়ক ও নৌপথে মানুষের চলাচল। ঈদকে ঘিরে আরো বেড়েছে মানুষের দূরদূরান্ত পাড়ি দেয়ার চেষ্টা। সকল লকডাউন-বাঁধা বিপত্তি ভেঙ্গে নিজের কথা না ভেবে, পরিবারের কথা না ভেবে যখন নাড়ির টানে বাড়ির পথে ছুটছে মানুষ তখন নির্মম পথ দূর্ঘটনা বেড়েই চলছে। এর পেছনে রয়েছে সরকারের একটি বিশেষ মহলের ষড়যন্ত্র, রয়েছে পুলিশ-প্রশাসনের অপরাধ-দুর্নীতি-ব্যর্থতা। বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সেভ দ্য রোড-এর বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীদের দেয়া তথ্যনুসারে ২০০৯ সাল থেকে প্রতিবছরের মত এবছরও প্রতিবেদন তৈরি করতে গিয়ে আমাদের সামনে সবার আগে উঠে এসেছে অপরাধ-দুর্নীতি ও অসচেতনতার চিত্র। ২০২১ সালের জানুয়ারী থেকে মে মাসের ১০ তারিখ পর্যন্ত আকাশপথে কোন দূর্ঘটনার সংবাদ বা তথ্য সেভ দ্য রোড-এর কাছে না থাকলেও জানুয়ারী, ফেব্রুয়ারী ও মার্চ মাসে ১৭ টি রেল দূর্ঘটনার সংবাদ গণমাধ্যমের তথ্যনুযায়ী আমাদের মিডিয়াসেল-এ সংরক্ষিত আছে। যার প্রতিটি দূর্ঘটনার নেপথ্যে রয়েছে সাধারণ মানুষের অসচেতনতা। সড়কপথে বছরের শুরু থেকেই ছিলো চরম নৈরাজ্য-অস্থিরতা-দুর্নীতি-চাঁদাবাজী ও একের পর এক দূর্ঘটনার চিত্র। নৌপথে বরাবরের মত নৌপুলিশ ও নৌপরিবহন দের সংশ্লিষ্টদের দুর্নীতি-দায়িত্বে অবহেলার কারণে ১ জানুয়ারী থেকে ১০ মে পর্যন্ত ছিলো চরম বিশৃংখলা-অপমৃত্যু-দুর্ঘটনা-মৃত্যুমিছিল।

প্রিয় গণমাধ্যম ব্যক্তিবর্গ
আপনারা জানেন, নৌপথ মানেই শান্তির পথ হিসেবে ব্যাপক আলোচিত ছিলো নদীমাতৃক বাংলাদেশে। সেই নদীপথে তৈরি হওয়া বিভিন্ন নীতিবিবর্জিত তথাকথিত সিস্টেম-এর কারণে প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা। যদি গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে বলি, স্পষ্ট এটাই যে, বাংলাদেশে সড়ক ও নৌপথে পুলিশ-প্রশাসনের দুর্নীতির কারণে নদীপথে নিষেধ থাকা স্বত্বেও বিভিন্ন অসঙ্গতিপূর্ণ কাজ চলছে অহরহ। ৩ মে’র কথাই যদি বলি, সেদিন নিষেধ থাকা স্বত্বেও নৌপুলিশ-স্থানিয় প্রশাসন ও ঘাট নেতাদের যোগসাজসে দীর্ঘদিন যাবৎ চলে আসা স্পিডবোট চলাচলের ধারাবাহিকতায় মাদারীপুরের শিবচরের কাঁঠালবাড়ী ঘাটে বাল্কহেডের সঙ্গে স্পিডবোটের সংঘর্ষে ২৬ জন নিহত হয়েছে। আহতও হয়েছে অনেকে। অবশ্য সেই ঘটনার পর যথারীতি জেলা প্রশাসন গঠিত তদন্ত কমিটি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এই পর্যন্তই শেষ, আর কোন ফলোআপ পাওয়া যাবে না সংশ্লিষ্টদের কাছে। বড়জোর যেই ব্যক্তি এই স্পিডবোটের মালিক তাকে আটক করবে; অথচ তাঁর কাছ থেকেই প্রতিদিন প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিরা অর্থ নিয়ে এই বাহন চলাচলের ব্যবস্থা করে দিয়েছে।

প্রিয় সংবাদযোদ্ধাগণ
পরিশেষে বলতে চাই, সেভ দ্য রোড বাংলাদেশে সড়ক-আকাশ- রেল ও নৌপথ নিরাপদ করার জন্য নিবেদিত একমাত্র স্বেচ্ছাসেবি সংগঠন। এই সেভ দ্য রোড যখন দেখে লকডাউন চলছে, মানুষের বাড়ি যাওয়াও চলছে; তখন পুলিশ-প্রশাসন-সংশ্লিষ্টদের ব্যর্থতা সারা আর কিছুই দেখতে পায় না। আমরা গণমাধ্যম এর মাধ্যমে বলতে চাই, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পরিবহন চালু করে দিন, না হলে লকডাউনে পরিবহনশ্রমিকদেরকে কমপক্ষে ১০ হাজার টাকা করে পৌছে দিয়ে সত্যিকার্থেই লকডাউন কার্যকর করুন। নির্মমভাবে বাংলাদেশে মানুষকে আর মরতে দেখতে চাই না নৌপথ-জনপদ ও সড়কপথে। আপনারা জানেন, আমরা গত ৪ মে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছি সেভ দ্য রোড-এর পক্ষ থেকে; করোনাকালের প্রণোদনা পরিবহন শ্রমিকদেরকে দিয়ে লকডাউন কার্যকর করার দাবিতে। এক দিকে করোনা, অন্যদিকে করোনাকালিন লকডাউনে নির্মমভাবে এক মাইক্রোবাসে ১৭ জন, পিকআপ-ট্রাকে করে মানুষের বাড়ি ফেরা বন্ধে পুলিশ-প্রশাসনের নীতিময় পদক্ষেপ প্রত্যাশায় আবারো সবাইকে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি…