এসপিসির গ্রাহক ধরার অভিনব ফাঁদ, হাতিয়েছে ৬০০ কোটি টাকা

0
245
এসপিসি ওয়ার্ল্ড এক্সপ্রেস

বার্তা সম্পাদক শাওন আহমেদ : ডেসটিনি ও যুবকের পর এবার লাখ লাখ গ্রাহক থেকে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে ‘এসপিসি ওয়ার্ল্ড এক্সপ্রেস’ ( spc world express ltd ) নামের আরেক বহুস্তরভিত্তিক বিপণন ব্যবসা (এমএলএম) প্রতিষ্ঠান। ই-কর্মাসের নামে অবৈধভাবে এমএলএম পরিচালনা করে মাঠ পর্যায় থেকে ইতিমধ্যে প্রায় ৬০০ কোটি টাকা ঝুলিতে তুলেছে প্রতিষ্ঠানটি। গ্রাহক থেকে সংগ্রহ করা টাকায় ‘বিটকয়েন’ কিনে বিদেশে পাচার করছেন বলেও অভিযোগ প্রতিষ্ঠানটির একাধিক কর্মীর।

spc world express ltd


এসপিসি গ্রাহকদের তিন ধরনের প্রলোভন দেখায়। বিজ্ঞাপন দেখে আয় করা, ই-কমার্স স্টোর থেকে পণ্য ক্রয়/বিক্রয় করে আয় ও রেফার করার মাধ্যমে আয়। বাস্তবে তাদের কোনো পণ্যের হদিস নেই। মূলত রেফারেন্সের মাধ্যমে নতুন গ্রাহককে ১২০০ টাকা করে ফি দিয়ে জয়েন করানোই মূল ব্যবসা। একজনকে ১২০০ টাকায় জয়েন করালেই সেই টাকা থেকে যিনি জয়েন করান তিনি ৪০০ টাকা রেফারেন্স বোনাস পান। এছাড়া যিনি রেফারেন্স দিয়ে অন্যদের আইডি খোলাবেন তাকে জেনারেশন বোনাস নামে এমএলএম বোনাস দেয়। যেখানে প্রথম জেনারেশনে জনপ্রতি ১০০ টাকা, দ্বিতীয় জেনারেশনে জনপ্রতি ৫০ টাকা এবং তৃতীয় জেনারেশনে জনপ্রতি ১৫-২০ টাকা। তাদের জেনারেশন পদ্ধতি হচ্ছে, একজনের নিচে তিনজন জয়েন করানো এবং সেই তিনজনের নিচে আবার তিনজন করে (মোট ৯ জন) জয়েন করালে প্রথম জেনারেশন। এভাবে পরবর্তী ধাপে দ্বিতীয় ও তার পরবর্তী ধাপে তৃতীয় জেনারেশন হয়।

আরও খবর : ভবিষ্যৎ প্রজন্ম বাঁচাতে অনলাইন গেমস,টিকটক বন্ধ জরুরি: সাংবাদিক শাওন


এমএলএম পদ্ধতিতে কেউ এসপিসিতে ১২০০ টাকা দিয়ে আইডি খোলার পর তার অধীনে আরও তিনজনের আইডি খোলাতে পারলে তিনি হবেন ক্লাব মেম্বার। ওই তিনজনের অধীনে আরও তিনজন করে জয়েন করাতে পারলে হবেন রয়েল মেম্বার। রয়েল মেম্বাররা প্রতিদিন কোম্পানির লভ্যাংশের ২০ শতাংশ পান।
এর পরে রয়েছে ইনসেনটিভ বোনাস নামে উচ্চ পর্যায়ের এমএলএম নেটওয়ার্ক। এখানে কোনো আইডির অধীনে তিন লাইনে ১০০ করে মোট ৩০০ আইডি খোলাতে পারলে তিনি হন ১ স্টার রয়েল। ১ স্টার রয়েল হলে কোম্পানির লাভের সাড়ে ১৭ শতাংশ এবং সঙ্গে সিকিম বিমান ট্যুরের প্রলোভন। তিন লাইনে ৬০০ করে মোট ১৮০০ আইডি খোলাতে পারলে ২ স্টার রয়েল। তাদের জন্য ১৫ শতাংশ শেয়ার ও নেপাল ট্যুর। তিন লাইনে ১০০০ করে মোট ৩০০০ হাজার আইডি খোলাতে পারলে ৩ স্টার রয়েল। এবার সাড়ে ১২ শতাংশ শেয়ার ও থাইল্যান্ড ট্যুরের প্রলোভন। একইভাবে সর্বোচ্চ প্রতি লাইনে ১৫০০০ করে মোট ৪৫০০০ আইডি খোলাতে পারলে সাত স্টার রয়েছে। সাত স্টার হলে কোম্পানির আড়াই শতাংশ শেয়ার ও নগদ ২৫ লাখ টাকার প্রলোভন।

আরও খবরঃ অনলাইনে কেনাকাটা করার জন্য জনপ্রিয় সাইট এখন হাতের কাছেঃ লিঙ্ক

একজনের অধীনে এভাবে বিপুল পরিমাণ আইডি খোলানোর নিয়মে লভ্যাংশের কথা বলা হয়েছে বাস্তবে তার কোনো অস্তিত্ব নেই। এসপিসির বাস্তবে কোনো ব্যবসা নেই। মূলত প্রতিদিন ১২০০ টাকা করে দিয়ে যে হাজার হাজার মানুষকে আইডি খোলানো হয় সেই টাকা ভাগবাটোয়ারা হয়।

দিনের পর দিন এভাবে এক জনগোষ্ঠীর উপরে প্রতারণা চালিয়ে যাচ্ছে এসপিসি ওয়ার্ল্ড এক্সপ্রেস ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here