বশেমুরবিপ্রবিতে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব-এর ৯২তম জন্মবার্ষিকী উৎযাপন

0
299

হৃদয় সরকার, বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ


গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে(বশেমুরবিপ্রবি) বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব-এর ৯২তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

আজ ৮আগস্ট(সোমবার) দিনটি উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫০১ নম্বর সেমিনার কক্ষে বিকাল ৩ টায় এ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. রাজিউর রহমানের সঞ্চালনায় সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য ড. এ কিউ এম মাহবুব এবং অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ মোরাদ হোসেন, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. হাসিবুর রহমান, ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. মো.শাহজাহান, ইতিহাস বিভাগের সভাপতি মোছাঃ সানজীদা পারভীন, ইংরেজি বিভাগের সভাপতি মোঃ আশিকুজ্জামান ভুঁইয়া, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক গোলাম হায়দারসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

এসময় তারা বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের সাথে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনকাল এবং বাংলাদেশের প্রতিকূল অবস্থায় সময়ে ফজিলাতুন্নেছার কৃতিত্ব নিয়ে আলোচনা করেন। এবং জাতির পিতার দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের প্রতিকূল অবস্থার সময়ে সহধর্মিণী হিসেবে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের অবদান নিয়ে আলোচনা করেন।

আলোচনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ কিউ এম মাহবুব বলেন, বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব সারাবিশ্বের নারী জাতির কাছে অনুকরণীয় এক নাম। তিনি সাধারণের মাঝে থেকেও একজন অসাধারণ নারী ছিলেন। তার বুদ্ধি, সাহসীকতা, অনুপ্রেরণা, ধৈর্য ও দূরদর্শিতা বঙ্গবন্ধুকে জাতির পিতায় রূপান্তরিত করেছে। তিনি আরও বলেন, বাঙ্গালী জাতির গর্ব হিসেবে শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের নাম অনন্য। কারন পাকিস্থান পিরিয়ডে বাংলাদেশের দূরাবস্তায় তার ভূমিকা ছিল অনন্য। তিনি সর্বদা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পাশে থেকে তাকে মানসিকভাবে সহযোগিতা করেছিলেন৷ এমনকি বঙ্গবন্ধু যখন জেল খানায় বন্দি অবস্থায় ছিলেন তখনও তাকে আর্থিকভাবে সহযোগীতা প্রদান করেছিলেন।